ওয়েব ডিজাইন জার্গন (Jargon)

ওয়েব ডিজাইন জার্গন (Jargon) বা পরিভাষা  বাস্টার: আপনার যা জানা দরকার…

ওয়েবসাইট জার্গন (Jargon) বা পরিভাষা সম্পর্কে আপনিও জানুন I তাহলে আপনি বুঝবেন আপনার জন্য কোন ধরনের ওয়েবসাইট দরকার বা কোন ধরনের ফাংশনালিটি দরকার I আপনি সঠিক প্রতিষ্ঠানকে খুঁজে পাবেন তখনই যখন আপনি ওয়েবসাইট সম্পর্কে ভালোভাবে জানতে ও বুঝতে শিখবেন I এক পর্যায়ে আপনি বুঝে ফেলবেন কিভাবে ওয়েবসাইটটি পরিচালনা করলে আপনার ব্যবসা সত্যিই উন্নতি লাভ করবে I

Web design agency in Dhaka, Bangladesh - Coderscrown

আপনার ব্যবসার জন্য একটি নতুন ওয়েবসাইট তৈরি করতে গেলে যখন ওয়েবসাইট ডিজাইনার সাথে আপনি কথা বলবেন তখন কিছু জার্গন (Jargon) বা পরিভাষা চলে আসবে I এই পরিভাষাগুলোর সাথে আপনি পরিচিত হলে তার সাথে কথোপকথন আরো সুন্দরভাবে আগাবে, আপনি বুঝতে পারবেন ঠিক কোন পরিভাষার অধীনে কি ধরনের ফাংশনালিটি জড়িত বা সেটা আপনাকে কিভাবে পেতে হবে I

সাধারণ ব্যবহারকারীর সুবিধার্থে এখানে কিছু পরিভাষা ব্যবহার করছি যেগুলো জানলে একজন ওয়েবসাইট ব্যবহারকারী বুঝতে পারবেন তার ওয়েবসাইটটি কিভাবে তৈরি করতে হবে বা এ ব্যাপারে ওয়েবসাইট ডিজাইনারের সাথে কিভাবে আলাপচারিতা চালিয়ে যেতে পারবে I

সিএমএস (CMS- content management system)

একটি সিএমএস বা বিষয়বস্তু ব্যবস্থাপনা সিস্টেম হচ্ছে  এমন একটি প্রোগ্রাম যা দ্বারা ডিজিটাল সামগ্রী সৃষ্টি ও পরিবর্তন সহ সামগ্রিক পরিচালনা করা হয়ে থাকে। বিষয়বস্তু ব্যবস্থাপনা সিস্টেম এর উদাহরণ গুলির মধ্যে রয়েছে: ওয়ার্ডপ্রেস (WordPress), জুমলা (Joomla) এবং ড্রুপাল (Drupal) ।

সি টি

CTA (Call To Action) ওয়েবসাইটের একটি অংশকে বোঝায় যা ব্যবহারকারীর একটি নির্দিষ্ট কাজ সম্পাদন করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে, সাধারণত একটি ফর্ম বা টেলিফোনের মাধ্যমে অনুসন্ধান করার জন্য ডিজাইন করা হয়।

পিপিসি

পিপিসি (Pay Per Click) বা পে-প্রতি-ক্লিক বিপণন – একটি ইন্টারনেট বিজ্ঞাপন পদ্ধতি যা ওয়েবসাইটগুলিতে ট্রাফিক চালাতে ব্যবহৃত হয়, এখানে একজন বিজ্ঞাপনদাতা শুধুমাত্র প্রকাশককে অর্থ প্রদান করে এবং  একজন ব্যবহারকারী বিজ্ঞাপনে ক্লিক করেন।

এস ই ও

সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশান (SEO) হল গুগল এবং বিং-এর মতো সার্চ ইঞ্জিন থেকে একটি ওয়েবসাইটে ট্রাফিকের গুণমান এবং পরিমাণ উন্নত করার প্রক্রিয়া। SEO হচ্ছে অর্থপ্রদানের দ্বারা বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে ট্রাফিক আনার পরিবর্তে ওয়েবসাইটের কার্যকারিতা ও কানেক্টিভিটির উন্নয়নের মাধ্যমে ট্রাফিক বৃদ্ধির উপায়। উদাহরণস্বরূপ, প্রতিটি পৃষ্ঠার মূল অংশে এমন কীওয়ার্ড রয়েছে যা সার্চ ইঞ্জিনকে পৃষ্ঠাটি সম্পর্কে জানতে সাহায্য করে এবং তাই এটি ব্যবহারকারীর অনুসন্ধানের সাথে সম্পর্কিত একটি বিষয়।

স্লাগ

একটি পৃষ্ঠার স্লাগ হল ওয়েবসাইটের ঠিকানার শেষ অংশ যা পৃষ্ঠা থেকে পৃষ্ঠায় আলাদা। উদাহরণস্বরূপ, https://coderscrown.com/9-solid-reasons-for-website-redesign-in-2021/এর জন্য “9-solid-reasons-for-website-redesign-in-2021”হবে স্লাগ।

SSL

SSL মানে সিকিউর সকেট লেয়ার- এটি একটি ওয়েব সার্ভার এবং একটি ওয়েব ব্রাউজারের মধ্যে একটি এনক্রিপ্ট করা লিঙ্ক তৈরি করে। এটি গ্রাহকের তথ্যের নিরাপত্তা এবং গোপনীয়তা নিশ্চিত করে। যদি একটি ওয়েবসাইট সুরক্ষিত হয় তবে আপনার ব্রাউজারে URL এর পাশে একটি ছোট প্যাডলক থাকবে।

UI (User Interface Design)

UI ডিজাইন হল নান্দনিকভাবে ইন্টারেক্টিভ ইন্টারফেস তৈরি করা। ইন্টারফেস ওয়েব ব্যবহারকারীদের একটি ওয়েব ব্রাউজারের মাধ্যমে চলমান সফ্টওয়্যার এবং অন্যান্য সামগ্রীর সাথে যোগাযোগ করার অনুমতি দেয়। অর্থাৎ, এটি এমন একটি উপায় যার দ্বারা একজন ব্যক্তি একটি ওয়েবসাইটের সাথে যোগাযোগ করে। উদাহরণস্বরূপ, একটি ফর্ম এর মধ্যে তাদের বিবরণ ইনপুট I

ইউএক্স (UX- User experience design)

ইউএক্স ওয়েবসাইট ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতাকে বুঝায় I এটি একজন ব্যবহারকারীর একটি ওয়েবসাইট বা কম্পিউটার অ্যাপ্লিকেশনের সাথে ইন্টারঅ্যাক্ট করার একটি সামগ্রিক অভিজ্ঞতা। সাধারণত ওয়েবসাইট কতটা ব্যবহারকারী-বান্ধব বা ব্যবহার করা সহজ তা দ্বারা ওয়েবসাইটের গুণগত দিক পরিমাপ করা হয়।

ব্যাক-এন্ড (Back-end)

একটি ওয়েবসাইটের “ব্যাক-এন্ড” হল সেই অংশ যেখানে বিষয়বস্তু সম্পাদনাযোগ্য – এই অংশটিতে সম্পাদককে লগ ইন করতে হবে এবং সাধারণ ব্যবহারকারীদের কাছে দৃশ্যমান নয়৷

ব্রেডক্রাম্বস (breadcrumb)

ব্রেডক্রাম্ব হল একটি নেভিগেশনাল এইড যা ব্যবহারকারীকে পৃষ্ঠার ক্রমানুসারে যে পৃষ্ঠাটির সাথে তারা ইন্টারঅ্যাক্ট করছে তার ট্র্যাক রাখতে সাহায্য করার জন্য ওয়েবসাইটে প্রদর্শিত হয়।

ফেভিকন (fevicon)

ফেভিকন হল একটি ছোট ছবি যা ব্রাউজার ট্যাব, বুকমার্ক এবং একটি ওয়েবসাইটের অন্যান্য এলাকায় প্রদর্শিত হয়। এটি সাধারণত ওয়েবসাইটের লোগো বা আইকনের একটি সরলীকৃত সংস্করণ।

সামনের অংশ (Front-end)

আমরা যাকে ওয়েবসাইটের “ফ্রন্ট-এন্ড” বলি সেটি হল এর ব্যবহারকারীদের কাছে দৃশ্যমান অংশ। অন্য কথায়, এটি ওয়েবসাইটের ডিজাইন।

ফুটার (footer)

ফুটার হল ওয়েবসাইটের নীচের অংশ যা প্রতিটি পৃষ্ঠায় উপস্থিত থাকে এবং সাধারণত পৃষ্ঠা থেকে পৃষ্ঠায় এর পার্থক্য হয় না। এতে প্রায়ই কোম্পানির তথ্য থাকে, যেমন কোম্পানির ঠিকানা বা ইভেন্টের সময় এবং অন্যান্য দরকারী তথ্য।

হেডার (header)

হেডার হল ওয়েবসাইটের উপরের অংশ, সাধারণত কোম্পানির লোগো, নেভিগেশন এবং একটি কল টু অ্যাকশন থাকে। এটি প্রতিটি পৃষ্ঠায় উপস্থিত থাকে এবং সাধারণত পৃষ্ঠা থেকে পৃষ্ঠায় এটি আলাদা হয় না।

হিরো (Hero)

একটি ওয়েবসাইটের যে অংশটিকে আমরা “হিরো” বলি সেটি শিরোনামের ঠিক পরে থাকা অংশ। এটি পৃষ্ঠা থেকে পৃষ্ঠায় পরিবর্তিত হয় এবং সাধারণত পৃষ্ঠার শিরোনাম, পৃষ্ঠার একটি সংক্ষিপ্ত বিবরণ, একটি বৈশিষ্ট্যযুক্ত চিত্র এবং একটি কল টু অ্যাকশন থাকে ৷

ন্যাভিগেশন মেনু (navigation menu)

নাম অনুসারে, ব্যবহারকারীর জন্য একটি ওয়েবসাইটের পৃষ্ঠার লিঙ্কগুলির একটি ক্রমানুসারে তালিকা হচ্ছে ন্যাভিগেশন মেনু I ব্যবহারকারীরা যে পৃষ্ঠাটি দেখতে চায় ন্যাভিগেশন মেনু সেখানে নেভিগেট করা সহজ করে তোলে৷ I

পৃষ্ঠা এবং পোস্ট (page and post)

পৃষ্ঠাগুলি কন্টেন্টের জন্য ব্যবহার করা হয় বা কনটেন্ট পোস্ট করা হয় পৃষ্ঠাগুলোতে I পৃষ্ঠাগুলোতে পোস্ট আপডেট দিয়ে ব্লগ তৈরি করা হয়। একটি ওয়েবসাইটে পৃষ্ঠা এবং পোস্টের সমন্বয়ে হয়ে থাকে ।

স্লাইডার/ক্যারোজেল (slider / carousel)

উভয় একই অর্থ বহন করে, কারণ তারা ছবি, ভিডিও বা অন্যান্য বিষয়বস্তু একটি স্বয়ংক্রিয় বা ম্যানুয়াল স্লাইডশো হিসেবে প্রদর্শন করে। কিন্তু, স্লাইডারগুলি একবারে একটি স্লাইড প্রদর্শন করতে পারে, যেখানে ক্যারোসেল ব্যবহারকারীদের একবারে একাধিক স্লাইড দেখতে দেয়৷

ওয়েব ডিজাইন জার্গন (Jargon) সম্পর্কে আরো জানতে হলে নক করুন Coderscrown কে I

Rahima Khatun Lipi

Rahima Khatun Lipi

Categories

Recent Post

Subscribe

related posts